অপহরণের ৩০ বছর পর নকশা এঁকে ফিরে পেলেন পরিবার

সাতকাহন ডেস্ক

১৯৮৮ সালে অপহরণের শিকার হয়েছিল চার বছরের এক শিশু। বাড়ির বাইরে থেকে অপহৃত হয় শিশুটি। ৩০ বছর পর নিজের পরিবারকে ফিরে পেলেন তিনি। তাও আবার স্মৃতি হাতড়ে গ্রামের নকশা এঁকে। লি জিংউয়েই-এর এ গল্প হার মানাবে যেকোনো চিত্রনাট্যকেও।

চীনের দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনান প্রদেশের একটি গ্রাম থেকে অপহৃত হয়েছিলেন লি জিংউয়েই। অপহরণের পর তার নতুন ঠিকানা হয় সুদূর হেনান প্রদেশের এক পরিবারে। বাড়ির সামানে থেকে তাকে কেউ তুলে নিয়ে গিয়েছিল, এটুকুই মনে আছে লির। তার নাম কী ছিল, কোথায় বাড়ি, গ্রামের নাম, এমনকি বাবা-মায়ের নামও মনে ছিল না।

কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে লির একটি বিষয়ই স্মৃতিতে থেকে গিয়েছিল। সেটা হলো গ্রামের পরিবেশ। তার মনে ছিল, গ্রামটি দেখতে কেমন। বাড়ির সামনের ধান খেত, পুকুর, দূরেই একটি পাহাড়। সেখানে বাঁশের ঝাড়। অপহরণের আগে বাড়ির আশপাশের এ দৃশ্যই মাঝেমধ্যে আঁকত ছোট্ট লি। আর সেটাই যেন ৩০ বছর পর জাদুর মতো কাজ করল।

স্মৃতি হাতড়ে বাড়ির বাইরের সেই দৃশ্য এঁকেছিলেন লি। গ্রামটা কেমন সেটাও কাগজে ফুটিয়ে তুলেছিলেন। আর সেই ছবি নেট জগতে পোস্ট করে এমন গ্রাম কোথায় আছে, তা জানতে চেয়েছিলেন। ঘটনাচক্রে চীনের জননিরাপত্তা মন্ত্রণালয়ের নজরে আসে সেই ছবি এবং আবেদন। এরপরই তারা বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করে। ইউনানের ঝাওটঙে সেই ছবির বর্ণনা অনুযায়ী, একটি গ্রামের সন্ধান পায় মন্ত্রণালয়। সেখানেই শুরু হয় লির পরিবারের খোঁজ। এক দম্পতির খোঁজ পেয়েছিল মন্ত্রণালয়। কিন্তু তারা লির বাবা-মা কি না নিশ্চিত হতে পারছিলেন না সরকারি কর্মকর্তারা। শেষমেশ ওই দম্পতির ডিএনএ সংগ্রহ করা হয়। লির ডিএনএর সঙ্গে তা মিলিয়ে দেখা হয়। আর সেই ডিএন পরীক্ষার পরই জানা যায়, ওই দম্পতিই অপহৃত হওয়ার লির বাবা-মা।